Online Income

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন। ফ্রিল্যান্সিং এর যত নিয়ম।

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার নিয়ম সমুহ জেনে নিন। আজকের আলোচনাটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন: বর্তমান যুগে অসংখ্য মানুষ জন ফ্রিল্যান্সিং এর সাথে যুক্ত। আবার অনেকেই আছেন যারা ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে জানতে ইচ্ছুক। ফ্রিল্যান্সিং শিখে ফেলেন সিং এর কাজ করে তারা জীবনে উন্নতি করতে চাই। অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য বিভিন্ন ইনস্টিটিউট অথবা অনলাইন প্লাটফর্ম থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ জানা সত্ত্বেও কাজ না পেয়ে বসে থাকেন। ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন অনেকেই আবার কাজ শুরু করার নিয়ম সম্পর্কে জানেন না। আবার এমন অনেকেই আছেন যারা কাজ শুরু করার পরেও নির্দিষ্ট নিয়ম না জানার কারণে কাজ কন্টিনিউ করতে পারেন না। Read in English

আমরা আমাদের আজকের আলোচনার মাধ্যমে সেই সকল ফ্রিল্যান্সারদের জন্য টিপস নিয়ে হাজির হয়েছি। নতুন ফ্রিল্যান্সাররা আমাদের আজকের আলোচনায় উল্লেখিত ধাপগুলো অনুসরণ করে কাজ এগিয়ে নিতে পারবেন। তাহলে চলুন মূল আলোচনা শুরু করা যাক।

আরও দেখুনঃ ফ্রিল্যান্সিং কি?

আরও দেখুনঃ অনলাইন থেকে টাকা আয়ের উপায়

কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো?

ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ শুরু করার জন্য অবশ্যই স্টেপ বাই স্টেপ এগোতে হবে। এলোমেলো কাজ করলে কখনোই আপনি ফ্রিল্যান্সিং জগতে টিকে থাকতে পারবেন না। ফ্রিল্যান্সিং জগতে টিকে থাকতে হলে অবশ্যই ধীরে ধীরে প্রতিটা কাজ সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে হবে। এবং নিজের কাজের মাধ্যমে সকলের নিকট একজন পরিচিত ছিলেন স্যার হয়ে উঠতে হবে। নিচের কাজগুলো ধাপ অনুযায়ী শুরু করতে হবে। ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন

    • সর্ব প্রথমে একটি বিশেষ কাজ বা স্কিল নির্বাচন করতে হবে।
    • নিজের পছন্দনীয় কাজ এর সবকিছু নিজের আয়ত্ত করতে হবে।
    • নিজের জন্য একটি ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট তৈরি করতে হবে।
    • আপনার প্রতিটি কাজের বিনিময়ে পারিশ্রমিক নির্ধারণ করতে হবে।
    • আপনি যে কাজটি গ্রহণ করবেন অবশ্যই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সুন্দর ভাবে সম্পূর্ণ কাজটি শেষ করতে হবে। এবং কাস্টমারের কাছে কাজটি নির্ধারিত সময়ে পৌঁছাতে হবে।
    • অবশ্যই নিজের একটি সুন্দর ছবি দিয়ে সুন্দর মত একটি প্রোফাইল তৈরি করতে হবে। মনে রাখবেন আপনি যতই ভালো কাজ পেড়ে থাকেন কিন্তু প্রোফাইল সুন্দর না হলে আপনি ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ পাবেন না।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন

ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট তৈরি

নিজের স্কিল সম্পর্কে ধারণা রাখার পরে সেই অনুযায়ী আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট খুলতে হবে। Google Search অথবা YouTube থেকে আপনি ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট খোলার পদ্ধতি সমূহ সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন। আপনি নিচের প্ল্যাটফর্ম গুলো ব্যবহার করেও ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট খুলতে পারেন

  • fiverr.com
  • guru.com
  • upwork.com

এই প্ল্যাটফর্মগুলোতে আপনার ফ্রিল্যান্স অ্যাকাউন্ট তৈরি করার মাধ্যমে আপনি দেশ-বিদেশ বিভিন্ন স্থান থেকে প্রচুর কাজ গ্রহণ করতে পারবেন। মনে রাখবেন প্রথমেই আপনি প্রচুর পরিমাণে কাজ পাবেন না। নিজের ব্র্যান্ড আপনাকে তৈরি করে নিতে হবে। অল্প যে কাজগুলো পাবেন সেগুলো সুন্দর ভাবে সম্পন্ন করলেন আপনি ধীরে ধীরে মানুষের কাছে পরিচিত হবেন এবং প্রচুর পরিমাণে কাজ পাবেন।

আরও দেখুনঃ ফ্রিল্যান্সিং কি?

আরও দেখুনঃ অনলাইন থেকে টাকা আয়ের উপায়

How-to-Start-Freelancing-2

কাজ সিলেক্ট করা

সর্বপ্রথমে ফ্রিল্যান্সিং এর জগতে আসতে হলে আপনাকে একটি বিষয় বা টপিক অথবা প্রফেশন সিলেক্ট করতে হবে। ট্রান্সলেট করার ক্ষেত্রে আপনি কোন কাজটি ভালো পারেন সে বিষয়ে নজর দিতে হবে। যেমন আপনি যদি ভালো Graphics Design অথবা Logo Design করতে পারেন তাহলে আপনাকে সেই অনুযায়ী Graphics Designer হিসেবে একটি ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট তৈরি করতে হবে। অবশ্যই কাস্টমারের কাছ থেকে কাজ গ্রহণ করার পূর্বে আপনাকে বুঝে নিতে হবে সেই কাজটি আপনি কতোটুকু করতে পারবেন। সম্পূর্ণ কাজটি আপনি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে পারবেন কিনা। ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন

আরও দেখুনঃ ফ্রিল্যান্সিং কি?

দেখুনঃ ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম

আরও দেখুনঃ অনলাইন থেকে টাকা আয়ের উপায়

নিজের পারিশ্রমিক ঠিক করা

আপনার কোন কাজের জন্য আপনি ক্লায়েন্টের কাছ থেকে কত টাকা গ্রহণ করবেন তা অবশ্যই আপনাকে ঠিক করে রাখতে হবে। মনে রাখবেন প্রথম থেকেই যদি আপনি অনেক বেশি পারিশ্রমিক নির্ধারণ করেন তাহলে কাজ পাবেন না। প্রথম ক্ষেত্রে আপনাকে অল্প পারিশ্রমিকে এ কাজ করতে হবে।

প্রথমেই আপনি কাজ শুরু করলে ক্লায়েন্টরা আপনাকে ভরসা করতে পারবে না। সে সময় অল্প পারিশ্রমিক দেখে অনেকে কাজ করিয়ে নিতে পারে এবং আপনিও ক্লায়েন্ট পেয়ে যেতে পারেন। তাই কাজ শুরু করার প্রথম দিকে আপনাকে কম পারিশ্রমিক নির্ধারণ করতে হবে।

নির্দিষ্ট সময়ে কাজ সম্পন্ন করা

নিজের কাজগুলো অবশ্যই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে। ক্লায়েন্টদের নিকট থেকে প্রাপ্ত কাজগুলো আপনাকে অবশ্যই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তার কাছে হস্তান্তর করতে হবে। এ সময় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে তাড়াহুড়ায় কাজ করার জন্য যেন আপনার কাজটি কোন রকম ত্রুটিযুক্ত না হয়। কম টাকা নিয়ে ভালোমতো কাজ সম্পন্ন করলে আপনি ভালো রিভিউ পাবেন যা আপনাকে পরবর্তীতে কাজ দিতে সাহায্য করবে।

How-to-Start-Freelancing-3

অবশ্যই আপনার কাজের মাধ্যমেই আপনার একটি নিজস্ব ব্র্যান্ড তৈরি করে নিতে হবে। আপনার অ্যাকাউন্টটি সকলের নিকট পরিচিত হয়ে গেলে আপনি নিজের মত পারিশ্রমিক ঠিক করতে পারবেন।

নতুন কাজ বা প্রজেক্ট কিভাবে পাবেন?

আপনি নতুন ফ্রিল্যান্সিং একাউন্ট তৈরি করার পরেই দেখতে পাবেন সেই প্লাটফর্মে অনেক প্রজেক্টস রয়েছে। বিভিন্ন কোম্পানি বা লোকজন তাদের প্রয়োজনের জন্য এই কাজগুলো উক্ত প্লাটফর্মে প্রকাশ করেছে। আপনার দক্ষতা অনুযায়ী প্রজেক্ট নির্ধারণ করে সেই কাজটি পাওয়ার জন্য অনুরোধ জানাতে পারেন। ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন

আরও দেখুনঃ ফ্রিল্যান্সিং কি?

আরও দেখুনঃ অনলাইন থেকে টাকা আয়ের উপায়

কোন কোম্পানি বা মানুষ আপনাকে দিয়ে কাজ করাতে চাইলে অবশ্যই তারা আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।

এছাড়াও আপনি বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্মগুলোতে কিরকম পারিশ্রমিকের বিনিময়ে কোন কাজ করতে ইচ্ছুক সেগুলো পাবলিশ করতে পারেন। কাজ করানোর আগ্রহী লোকেরা সেখান থেকে আপনাকে খুঁজে পেতে পারবেন এবং আপনার কাজ পাওয়ার সুযোগ হয়ে দাঁড়াবে।

জনপ্রিয় এবং লাভজনক ফ্রিল্যান্সিং কাজ

ফ্রিল্যান্সিং কাজ শুরু করার পরে আমাদের সবার মনেই প্রশ্ন জাগে কোন কাজ গুলোর মাধ্যমে আমি অধিক পরিমানে আয় উপার্জন করতে পারব। সবার মনেই এই প্রশ্নটি আসে। নিচে ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ করে অধিক আয় করার পদ্ধতি উল্লেখ করা হলো। এই কাজগুলোর প্রচুর পরিমাণে চাহিদা ও প্রয়োজন থাকে। যার মাধ্যমে আপনি অধিক পরিমাণে কাজ পাবেন এবং বেশি আয় করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন

এই লাভজনক কাজগুলো হলো

Content Writing

বর্তমান সময়ে বিভিন্ন কোম্পানি তাদের প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের আর্টিকেল লিখার জন্য ভাল কনটেন্ট রাইটার খুঁজে থাকেন। এই কাজের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। আর তাই কনটেন্ট লিখে প্রচুর পরিমানে আয় করা সম্ভব। বিভিন্ন কোম্পানি তাদের প্রতিটি কনটেন্স লিখার জন্য 5 ডলার থেকে 15 ডলার বা তার থেকেও বেশি পেমেন্ট করতে পারে।

Web Designing

বিভিন্ন কোম্পানি অথবা ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান তাদের নিজেদের জন্য নতুন ওয়েবসাইট ডিজাইন করিয়ে নিতে চান। বর্তমান সময়ে সবকিছু ডিজিটাইজেশন হওয়ায় ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা প্রচুর। ওয়েব ডিজাইন করে প্রচুর ইনকাম করতে পারেন।

Graphics Design

বিভিন্ন কোম্পানির Logo বা গ্রাফিক ডিজাইন তৈরি করে আপনি প্রচুর পরিমানে আয় করতে পারেন। বর্তমানে সকল ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্মগুলোতে গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। সুন্দর সুন্দর Logo অথবা গ্রাফিক্স ডিজাইন করে আপনিও একজন পরিচিত ফ্রিল্যান্সার হয়ে উঠতে পারেন।

Digital Marketing

বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং এর চাহিদা প্রচুর। বিভিন্ন কোম্পানি তাদের নতুন নতুন প্রোডাক্ট এর অনলাইনে প্রচার সম্পন্ন করার জন্য Digital Marketer খুঁজে থাকেন। ডিজিটাল মার্কেটিং করে বর্তমানে অনেক ডলার আয় করা সম্ভব।

App Developer

Android App তৈরি করার মাধ্যমে আয় করা সম্ভব। বিভিন্ন কোম্পানি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান তাদের নিজস্ব অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ তৈরীর উদ্দেশ্যে ফ্রিল্যান্সার খুঁজে থাকেন। অ্যাপ ডেভেলপার হিসেবে কাজ করে প্রচুর ইনকাম সম্ভব।

অনেক কাজ রয়েছে যেগুলোর চাহিদা ব্যাপক এবং ফ্রিল্যান্সিং জগতে এই কাজগুলোর মাধ্যমে আপনি প্রচুর পরিমানে আয় করতে পারেন। ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করবেন

ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে আয় করার সকল পদ্ধতি সমূহ সম্পর্কে আমাদের আজকের এই আলোচনায় উল্লেখ করেছি। বন্ধুরা আশা করছি আমাদের আজকের এই আলোচনার মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং সংক্রান্ত অসংখ্য তথ্য আপনারা সহজেই জানতে পারছেন। এ ধরনের যে কোন তথ্য জানতে ফ্রীলান্সিং সংক্রান্ত প্রশ্ন সমূহ আমাদের করতে পারেন। এছাড়া যে কোনো ধরনের টেকনোলজি বিষয়ক তথ্য সমূহ জানতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

Akash

I am Akash Mahmud and I am a Graduate. I love to write articles. I am friendly and helpful. You will get your required information here. Keep Supporting Us.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button

Adblock Detected

Please Turn Off Adblocker to Get Your Information